Breaking News

শিশুর শরীরে অকেজো অ্যান্টিবডি!

মাইদুল ইসলাম বিপ্লবঃ

চীনের উহান থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে প্রতিদিন মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। যুবক, মাঝ বয়সী, বৃদ্ধ সবাই ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হচ্ছেন। কোভিড-১৯ থেকে রেহাই পাচ্ছে না শিশুরাও।

বলা হচ্ছে, শরীরে একবার অ্যান্টিবডি তৈরি হয়ে গেলে ফের সংক্রমণের সম্ভাবনা ঠেকিয়ে দেবে। ভাইরাস আর অ্যান্টিবডি একসাথে থাকতে পারে না। কিন্তু শিশুদের ক্ষেত্রে দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র।

সম্প্রতি এক মেডিক্যাল পরীক্ষায় দেখা গেছে, ছোটদের শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়ে যাওয়ার পরেও তারা অন্যকে করোনায় সংক্রমিত করতে পারে। তার কারণ, অনেক শিশুর ক্ষেত্রেই দেখা গিয়েছে শরীরে যথেষ্ট পরিমাণ অ্যান্টিবডি তৈরি হলেও পাশাপাশি ভাইরাসও থেকে গিয়েছে। যে ভাইরাস অন্যকে সংক্রামিত করার ক্ষমতা রাখে।

গবেষকরা বলছেন, ওই শিশুদের ‘ইমিউন রেসপন্স’ তাদের নিজেদের সুরক্ষার পক্ষেই যথেষ্ট নয়। কোভিড আক্রান্তদের নিয়ে ওয়াশিংটন ডিসির চিলড্রেন’স ন্যাশনাল হসপিটালের ডাক্তারদের একটি সমীক্ষায় এমনটাই সামনে এসেছে।

বৃহস্পতিবার ‘জার্নাল অফ পেডিয়াট্রিকস’-এ এই রিপোর্টটি ছাপা হয়েছে। কোভিড-১৯ এর জন্য দায়ী সার্স কোভিড-২ ভাইরাসে আক্রান্ত ৬ হাজার ৩৬৯ জন শিশুর উপর এই সমীক্ষা চালানো হয়। ১৩ মার্চ থেকে ২১ জুনের মধ্যে ২১৫ শিশুর অ্যান্টিবডি টেস্ট করা হয়। তখনই ডাক্তাররা বিস্ময়ের সাথে লক্ষ করেন, ৩৩ জনের শরীরে একই সময়ে একই সাথে ভাইরাস ও অ্যান্টিবডি রয়েছে।

গবেষক দলের অন্যতম বুরাক বাহার বলেন, বেশির ভাগ ভাইরাসের ক্ষেত্রে দেখা যায়, শরীরে আপনি যখন একবার অ্যান্টিবডির খোঁজ পাবেন, আর ভাইরাস খুঁজে পাবেন না। তার মানে, ছোটদের শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়ে যাওয়ার পরেও ভাইরাস ছড়ানোর ক্ষমতা তাদের মধ্যে থেকে যায়।

অ্যান্টিবডির উপস্থিতিতে ভাইরাস কী ভাবে সংক্রামিত হচ্ছে, তা কিন্তু অজানাই থেকে গিয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। ওয়াশিংটনের এই ডাক্তাররা সতর্ক করছেন, করোনাভাইরাসের অনেক কিছুই এখনও পর্যন্ত অজানা থেকে গিয়েছে। এই অবস্থায় কিন্ডারগার্টেন ও প্রাইমারি স্কুল খোলার উদ্যোগ ঝুঁকির। ছোটদের থেকে পরিবারের অন্য সদস্যরও করোনায় আক্রান্ত হতে পারেন।

ন্যাশনাল হসপিটালের এই সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, ৬ থেকে ১৫ বছর বয়সি বাচ্চাদের সুস্থ হতেই সবথেকে বেশি ৩২ দিন সময় লাগছে। ১৬ থেকে ২২ যাদের বয়স, তাদের সুস্থ হতে লাগছে মাত্র ১৮ দিন। আবার মেয়েদের ক্ষেত্রে যাদের বয়স ৬-১৫ বছরের মধ্যে করোনা থেকে সুস্থ হতে লেগে যাচ্ছে ৪৪ দিন। যেখানে একই বয়সি পুরুষদের ক্ষেত্রে সময় লাগছে ২৫.৫ দিন।

সূত্রঃ মানবকণ্ঠ

About Mustafijur Rahman

Check Also

যুক্তরাষ্ট্রে কয়েক দশকের মধ্যে সবচাইতে বেশি বিভেদের ভোট আজ

নওশের আহমেদঃ আমেরিকায় কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বিভেদপূর্ণ নির্বাচনের ভোট শুরু হচ্ছে আর একটু …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!